টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে লাইকোপিন থাকে। এটি একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা চোখে ছানি পড়া থেকে রক্ষা করে । লাইকোপিন চোখের রেটিনাকে সূর্যের ক্ষতি থেকে রক্ষা করে এবং দৃষ্টিশক্তিকে উন্নত করে।

গাজর বিটা-ক্যারোটিন নামক একটি উপাদানে পরিপূর্ণ, যা শরীরে ভিটামিন এতে রূপান্তরিত হয়। ভিটামিন এ চোখের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি চোখের রেটিনাকে আলোকে সংবেদনশীল করতে সাহায্য করে। 

পালং শাক ভিটামিন সি, লুটেইন এবং zeaxanthin নামক অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলির সংমিশ্রণে গঠিত, যা চোখের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি চোখের কোষগুলিকে ক্ষতি থেকে রক্ষা করে এবং দৃষ্টিশক্তিকে উন্নত করে। 

স্ট্রবেরি ভিটামিন C এর একটি চমৎকার উৎস, যা চোখের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ভিটামিন C চোখের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে এবং দৃষ্টিশক্তিকে উন্নত করে। 

কুমড়োর বীজ জিংক এবং ভিটামিন ই এর একটি চমৎকার উৎস, যা চোখের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। জিংক চোখের রেটিনাকে রক্ষা করে এবং দৃষ্টিশক্তিকে উন্নত করে। ভিটামিন ই চোখের কোষগুলিকে ক্ষতি থেকে রক্ষা করে এবং দৃষ্টিশক্তিকে উন্নত করে। 

বাদামে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম থাকে । যা চোখের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ম্যাগনেসিয়াম চোখের পেশীগুলিকে শিথিল করতে সাহায্য করে এবং দৃষ্টিশক্তিকে উন্নত করে। 

চীজ ভিএর মধ্যে ভিটামিন A, B২, B১২ এবং ক্যালসিয়াম প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়, যা চোখের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ভিটামিন বি১২ চোখের রক্ত সঞ্চালনকে উন্নত করে। ক্যালসিয়াম চোখের পেশীগুলিকে শক্তিশালী করে এবং দৃষ্টিশক্তিকে উন্নত করে।

ডিমের মধ্যে ভিটামিন A, B২, B১২, E এবং ফলিক অ্যাসিড পাওয়া যায় । ভিটামিন ই চোখের কোষগুলিকে ক্ষতি থেকে রক্ষা করে এবং দৃষ্টিশক্তিকে উন্নত করে। ফোলিক অ্যাসিড চোখের ছানি থেকে রক্ষা করে।